রূপসার সন্ত্রাসী হামলা মামলার আসামি’র আদালতে আত্মসমর্পণ : হাজতে প্রেরণ

মাইনুল ইসলাম, খুলনা: রূপসা উপজেলা মৈশাঘুনি গ্রামে উপজেলা শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর এইচ এম শাহিনের বাড়িতে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে হামলা মামলার আসামি মো. মামুন শেখ (২৮) আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন।

২০ সেপ্টেম্বর রবিবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আসামির পক্ষে অ্যাডভোকেট সুজিৎ অধিকারী জামিন আবেদন করেন। আদালতের বিচারক মো. সাইফুজ্জামান জামিন নামঞ্জুর করে তাকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ প্রদান করেছেন।

মামুন শেখ রূপসা উপজেলা মৈশাঘুনি গ্রামের আব্দুল হামিদ শেখের ছেলে। মামলার অপর আসামিরা হলেন রূপসা উপজেলা মৈশাঘুনি গ্রামের মৃত. মোমরেজ আলি শেখের ছেলে আব্দুল হামিদ শেখ (৫৫), আব্দুল হামিদ শেখের ছেলে মো. মামুন শেখ (২৮), আব্দুর রশিদ শেখের ছেলে পিয়াস শেখ (২১) ও করিম ঢালীর ছেলে রিয়াদ ঢালী (১৯)।

মামলার বিবরণে জানা যায়, রূপসা উপজেলা মৈশাঘুনি গ্রামের আব্দুল মোতালেব হালদারের ছেলে উপজেলা শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর এইচ এম শাহিন ৩০আগস্ট রাত ১০টার দিকে পরিবারের সকলকে নিয়ে খাবার খাচ্ছিলেন। এসময় হামিদ শেখ বাড়ির দরজা খুলতে বললে শাহিন দরজা খুলে দেয়। সঙ্গে সঙ্গে হামিদ শেখসহ অন্যান্যরা ঘরে ডুকে লোহার রড দিয়ে শাহিনের মাথায় আঘাত করে। তাকে বাঁচাতে স্ত্রী, সন্তানরা এগিয়ে আসলে তাদেরও মারপিট করা হয়।

চেচামেচি শুনে ২য় তলা থেকে বড় ভাই, ভাবী, পিতা-মাতা ছুটে এলে তাদেরও মারপিট করা হয়। পরে শাহিনের ছোট চাচা হেমায়েত হালদারসহ আরো অনেকে এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে চলে যায়। মারাত্মক আহত অবস্থায় শাহিনকে উদ্ধার করে খুলনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় এইচ এম শাহিন ৪জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে রূপসা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন, মামলা নং-৩।

ফেসবুক কমেন্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: